যত এক রানের আক্ষেপ !!!

শুনতেই কেমন আক্ষেপের না ? এক রানের আক্ষেপ !!!

ক্রিকেটে একজন ব্যাটসম্যানের জন্য সবচাইতে সম্মান জনক স্কোর সেঞ্চুরি। ওভারের পর ওভার, বলের পর বল খেলে তবেই আসেই একটি সেঞ্চুরি। যদি এমনটা করার পরেও খুব কাছাকাছি গিয়ে তরী ডুবে তাহলে নিশ্চয়ই কোনো ভাবেই সেটা মেনে নিতে সহজ হওয়ার কথা নয়। সেক্ষেত্রে সংখ্যাটা ৯৯ হলেই সব চাইতে পীড়াদায়ক।

আর সেটি যদি হয় টেস্টে তাহলে একরাশ হতাশা ছাড়া আর কিছুই করার থাকে না। টেস্টে দিতে হয় ধৈর্য্যের পরীক্ষা, সেশনের পর সেশন, ওভারের পর ওভার, বলের পর বল সব কিছুই বেশীই মোকাবেলা করতে হয়৷ সেক্ষেত্রে ৯৯ না হয়ে সংখ্যাটা যদি ১৯৯ কিংবা ২৯৯ হয় তাহলে কেমন লাগবে? আর একবার ভাবুন তো যদি আউট না হয়ে ৯৯ বা ১৯৯ অথবা ২৯৯ রানে অপরাজিত থাকার পর ইনিংস শেষ হয়ে যায় তখন কেমন লাগবে?

 

এক রানের আক্ষেপ

 

৯৯* –  অপরাজিত ৯৯, টেস্ট ক্রিকেটে এমন ইনিংস আছে ৬ টিটেস্ট ক্রিকেটে প্রথমবার এমনটার সাক্ষী হন ইংলিশ ব্যাটসম্যান জিওফ বয়কট। ১৯৭৯ সালে ১৪ ই ডিসেম্বর অজিদের বিপক্ষে পার্থে ৮ বাউন্ডারিতে ৯৯ রানে অপরাজিত থাকেন বয়কট। ২১৫ রানে দল অলআউট হওয়ায় স্পর্শ করা হয়নি তিন অংকের ম্যাজিক ফিগার।

বয়কটের পর এই স্কোরে অপরাজিত থাকা ব্যাটসম্যান স্টিভ ওয়াহ। একই ভেন্যু পার্থে ১৯৯৫ এর ফেব্রুয়ারিতে ইংলিশদের বিপক্ষে ১৮৩ বল খেলে ১২ বাউন্ডারিতে ৯৯ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। অজিরা অলআউট হওয়ায় স্পর্শ করা হয়নি সেঞ্চুরি। তবে পরের ইনিংসে ৮০ রান করে দল জিতিয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হন এই ব্যাটসম্যান।

[ এক রানের আক্ষেপ !!! ]

১৯৯৯ এর জুলাইয়ে বার্মিংহামে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে মাত্র ১১৭ বলে ২১ বাউন্ডারিতে ৯৯ রানে অপরাজিত থাকেন ইংলিশ ব্যাটসম্যান অ্যালেক্স টুডোর। টুডোরই এক মাত্র ব্যাটসম্যান যিনি ৯৯ রানে অপরাজিত থাকায় দল ম্যাচ জিতে যাওয়ায় সেঞ্চুরি করা হয়নি।

এক রানের আক্ষেপ
অ্যালেক্স টুডোর

সেঞ্চুরিয়নে ২০০২ সালের নভেম্বরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১৭০ বলে ৯৯ রানে অপরাজিত থাকেন প্রোটিয়া অলরাউন্ডার শন পোলক৷ ৯ বাউন্ডারি আর ২ ওভার বাউন্ডারিতে এই রান করে। অলরাউন্ড নৈপুন্য দেখিয়ে নির্বাচিত হন ম্যান অব দ্য ম্যাচ।

প্রোটিয়া অলরাউন্ডার অ্যান্ড্রু হল ২০০৩ সালের জুনে লিডসে ইংলিশদের বিপক্ষে ১২৬ বলে ১৫ বাউন্ডারি আর ২ ওভার বাউন্ডারি তে ৯৯ রানে অপরাজিত থাকেন।

৯৯ রানে অপরাজিত থাকা সর্বশেষ ইনিংসটি আসে ২০১৭ এর এপ্রিলে পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক মিসবাহ উল হক এর ব্যাট থেকে। কিংস্টনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ২২৩ বলে ৫ চার আর ৩ ছয়ে ৯৯ রানে অপরাজিত থাকেন৷

১৯৯* – এই স্কোরে তে আটকে থাকা দুই ব্যাটসম্যান অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার এবং কুমার সাঙ্গাকারা। দুইজনই ক্রিজে দাঁড়িয়ে দলের অল আউট দেখেছেন আর ভাগ্যের সহায় না হওয়ায় এই স্কোর নিয়েই সাজঘরে ফিরেছেন।

[ এক রানের আক্ষেপ !!! ]

অ্যান্ডি ফ্লাওয়ারের ইনিংসটি ২০০১ সালে হারারে তে দক্ষিন আফ্রিকার বিপক্ষে। প্রথম ইনিংসে খেলেন ২০০ বলে ১৪২ রানে এক ইনিংস। দ্বিতীয় ইনিংসে পাঁচ নাম্বারে নেমে ৪৭০ বল খেলে অপরাজিত থাকেন ১৯৯ রানে। ক্রিজে ছিলেন ৫৯০ মিনিট৷ ইনিংসটিতে ছিলো ২৪ বাউন্ডারি আর ১ টি ওভার বাউন্ডারি। ব্যক্তিগত ১৯৯ রানে থাকাকালীন দলের দশম উইকেটের পতন হওয়ায় স্পর্শ করা হয়নি ডাবল সেঞ্চুরি। দল অলআউট হয় ৩৯১ রানে৷ ৯ উইকেটে দল হারলেও স্বান্তনা পুরষ্কার স্বরূপ ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হন এই উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যান।

কুমার সাঙ্গাকারার ইনিংসটি ২০১২ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে গল টেস্টে। টেস্টের প্রথম ইনিংসে তিনি খেলেন ৩৪৮ বলে ১৯৯* রানের এই ইনিংস। ব্যাট করেছেন ৫৬২ মিনিট। ইনিংসটি সাজিয়েছিলেন ১৮ বাউন্ডারি আর ২ ওভার বাউন্ডারিতে। দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ১ রানে আউট হয়ে গেলেও দলের জয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হন এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান।

এক রানের আক্ষেপ
স্যার ডন ব্র্যাডম্যান

২৯৯* – ২৯৯ রানে অপরাজিত থাকা একমাত্র ব্যাটসম্যান স্যার ডন ব্র্যাডম্যান। ১৯৩২ সালের জানুয়ারীতে অ্যাডিলেডে দক্ষিন আফ্রিকার বিপক্ষে ২৯৯* রানে অপরাজিত থাকেন সর্বকালের সেরা এই ক্রিকেটার। দলীয় ৪৯৯ রানে অজিদের নবম উইকেটের পতনের এগারো নাম্বার ব্যাটসম্যান থারলো কে নিয়ে ট্রিপলের দিকেই এগিয়ে যাচ্ছিলেন ডন। দলীয় ৫১৩ রানের সময়ে থারলো রান আউট হওয়ায় ৩০০ আর স্পর্শ করা হলোনা। হয়ে যায় নতুন ইতিহাস।

এছাড়া ২৯৯ রানে আউট হওয়া এক মাত্র ব্যাটসম্যান সাবেক কিউই অধিনায়ক মার্টিন ক্রো। ১৯৯১ শ্রীলঙ্কা বিপক্ষে ওয়েলিংটনে সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৩০ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে ২৯৯ রানে রানাতুঙ্গার বলে উইকেটরক্ষক হাসান তিলকরত্নের তালুবন্দী হন তিনি৷ ৫২৪ বলে এই ইনিংসটি খেলতে সময় নিয়েছেন ৬১০ মিনিট, হাঁকিয়েছেন ২৯ বাউন্ডারি আর ৩ বাউন্ডারি।

[ এক রানের আক্ষেপ !!! ]

 

যত এক রানের আক্ষেপ !!!
অ্যালেক্স টুডোর

 

একবার ভাবুন তো সংখ্যা ৪৯৯ হলে আপনার কেমন লাগতো? যদি আপনি ৪৯৯ তে আউট হন। কেমন লাগবে? উত্তর টা একমাত্র পাক-গ্রেট হানিফ মোহাম্মদ এরই জানা। কারণ হানিফ মোহাম্মদ এক মাত্র ক্রিকেটার যিনি প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে ৪৯৯ রানে আউট হয়েছেন। ৬৩৫ মিনিটের এই ইনিংসটিতে ছিলো ৬৪ টি বাউন্ডারি। ম্যাচটি ছিলো ১৯৫৯ এর জানুয়ারিতে করাচিতে কায়েদ ই আজম ট্রফির সেমিফাইনালে করাচির হয়ে। রান আউট হয়ে এক রানের আক্ষেপ নিয়ে ফেরেন তিনি।

এছাড়া ২৪ বছরের ক্যারিয়ার জুড়ে ২৮ বার নার্ভাস নাইনটিজে আটকে থাকা ভারতীয় ক্রিকেট লিজেন্ড শচীন টেন্ডুলকার টেস্টে নার্ভাস নাইনটিজে আটকে গেছেন ১০ বার। তবে নেই কোনো অপরাজিত ৯৯। তবে পাকিস্তানের বিপক্ষে পাকিস্তানেই ১৯৪ রানে অপরাজিত একটি ইনিংস রয়েছে। যেখানে অধিনায়ক রাহুল দ্রাবিড় ইনিংস ঘোষণা দেওয়ায় ৬ রানের আক্ষেপ নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় তাকে।

লেখকঃ ইশতিয়াক শাওন, ক্রীড়া গুরুকুল

এক রানের আক্ষেপ ! !!!

মন্তব্য করুন