সকল অভিযোগ কেন ডমিংগোর বিরুদ্ধেই?

সকল অভিযোগ কেন ডমিংগোর বিরুদ্ধেই?

রাসেল ডমিংগো, বর্তমানে বাংলাদেশ দলের হেড কোচ। ২০১৯ বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে বাংলাদেশ দল কোয়ালিফাই না করতে পারায়, চাকরীচ্যুত করা হয় তৎকালীন কোচ স্টিভ রোডসকে এবং এরপরই বাংলাদেশ দলের প্রধান কোচের দায়িত্ব দেয়া হয় রাসেল ডমিংগোর হাতে। তবে, বাংলাদেশ দলের দায়িত্ব নেয়ার পর শুরুটা তেমন ভালো হয়নি ডোমিংগোর। বাংলাদেশের দায়িত্ব নেয়ার পরই নিজের প্রথম এসাইনমেন্ট তথা আফগানিস্তানের বিপক্ষে ঘরের মাটিতে অনুষ্ঠিত হওয়া একমাত্র টেস্টেই পরাজয় বরণ করে বাংলাদেশ।

রাসেল ডমিংগো বাংলাদেশ দলের দায়িত্ব নেয়ার পর থেকেই বাংলাদেশ কোনো স্মরণীয় জয় পেলেও অনেক সময়ই বিনা কারণে সমালোচনার বলি হন ডমিংগো। রাসেল ডমিংগো বাংলাদেশ দলের দায়িত্ব নেয়ার পর , টাইগাররা বেশকিছু স্মরণীয় জয় উপহার পেয়েছে যা দেশের ক্রিকেটকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যাচ্ছে। এতোকিছুর পরেও, দলে কোনো ম্যাচে আশানুরূপ ফল না পেলে, সব দোষ যেন পড়ে ডোমিংগোর ঘাড়েই।

রাসেল ডমিংগোর অধীনেই বাংলাদেশ দল প্রথমবারের মতো কোনো আন্তর্জাতিক টি টোয়েন্টি ম্যাচে ভারতকে পরাজিত করতে সমর্থ হয়। সে ম্যাচে ভারতকে ৭ উইকেটে হারায় বাংলাদেশ। ভারতের মাটিতেই ভারতকে হারানোর গৌরব অর্জন করে বাংলাদেশ। একই সিরিজের, তৃতীয় টি টোয়েন্টিতেও ভারতের বিপক্ষে জেতার সুযোগ ছিলো বাংলাদেশের। সে ম্যাচটি জিতলে হয়ত, ভারতের বিপক্ষে তাদের মাটিতেই এক মহাকাব্য রচনা করে ফেলত বাংলাদেশ।

সকল অভিযোগ কেন ডমিংগোর বিরুদ্ধেই?
ভারতের বিপক্ষে জয়ের পর বাংলাদেশ

এছাড়া, ঘরের মাটিতে উইন্ডিজের বিপক্ষে ৩-০ তে সিরিজ ওয়ানডে সিরিজ জেতে বাংলাদেশ। যদিও, সে সিরিজে উইন্ডিজের দ্বিতীয় সারির দল খেলতে এসেছিল ঢাকায়। তবুও, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কোনো দলকেই ছোট করে দেখার সুযোগ নেই এবং সব দলের বিপক্ষেই ভালো ব্র্যান্ডের ক্রিকেট খেলে জিততে হয় প্রত্যেক ম্যাচ।

[ সকল অভিযোগ কেন ডমিংগোর বিরুদ্ধেই? ]

রাসেল ডমিংগোর অধীনেই সর্বপ্রথম শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে কোনো দ্বিপাক্ষিক সিরিজ জিততে সমর্থ হয় বাংলাদেশ। ২০২১ সালে ঘরের মাটিতে ২-১ এ সিরিজ জেতে বাংলাদেশ। সে সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৩৩ রানে জয়লাভ করে। সে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও বাংলাদেশ ১০৪ রানের বিশাল ব্যবধানে জয়লাভ করে। তবে, সিরিজের তৃতীয় ম্যাচ জিতে শ্রীলঙ্কাকে হোয়াইটওয়াশ করতে পারেনি বাংলাদেশ। তবে, তা না করলেও সিরিজের প্রথম দুই ওয়ানডেতে জিতে ইতোমধ্যে নিজেদের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথমবারের মতো শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজ জয় নিশ্চিত হয়ে যায় বাংলাদেশের।

সসকল অভিযোগ কেন ডমিংগোর বিরুদ্ধেই?
শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয়ের পর বাংলাদেশ

রাসেল ডোমিংগোর অধীনে, বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে কোনো দ্বিপাক্ষিক সিরিজ জয়লাভ করে। ২০২১ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৫ ম্যাচ টি টোয়েন্টি ৪-১ এ জেতে বাংলাদেশ। সে সিরিজের প্রথম টি টোয়েন্টি ২৩ রানে জেতে বাংলাদেশ। সিরিজের দ্বিতীয় টি ইয়োয়েন্টিও ৫ উইকেটে জেতে বাংলাদেশ। স্রিজের তৃতীয় টোয়েন্টি ১০ রানে জিতলে, দুই ম্যাচ বাকি থাকতেই সিরিজ নিশ্চিত হয় বাংলাদেশের। সিরিজের চতুর্থ টি টোয়েন্টিতে ৩ উইকেটে বাংলাদেশ হারলেও পঞ্চম টি টোয়েন্টি ঠিকই জিতে ৪-১ এ সিরিজ শেষ করে বাংলাদেশ।

সকল অভিযোগ কেন ডমিংগোর বিরুদ্ধেই?
অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজ জয়ের পর বাংলাদেশ

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও ঘরের মাটিতে প্রথমবারের মতো টি টোয়েন্টি সিরিজ জেতে বাংলাদেশ। সে সিরিজটি বাংলাদেশ জেতে ৩-২ ব্যবধানে। সিরিজের প্রথম টি টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ ৪ উইকেটে জেতে এবং দ্বিতীয় টি টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ জেতে ৪ রানে। তবে, সিরিজের তৃতীয় টি টোয়েন্টি নিউজিল্যান্ড জেতে ৫২ রানে। তবে, সিরিজের চতুর্থ টি টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ ৬ উইকেটে জিতলেও সিরিজের পঞ্চম এবং সর্বশেষ টি টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ হারে ২৭ রানে। সিরিজটিতে বাংলাদেশ নিজেদের পারফর্মেন্সের ১০০ ভাগ প্রসর্শন না করতে পারলেও সিরিজটি জেতে বাংলাদেশ।

সকল অভিযোগ কেন ডমিংগোর বিরুদ্ধেই?
নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টি টোয়েন্টি ম্যাচে বাংলাদেশ

রাসেল ডমিংগোর অধীনে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ঐতিহাসিক জয় আসে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তাদেরই মাটিতে টেস্ট সিরিজ ড্র করার মাধ্যমে। সে সিরিজে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে তাদের বিপক্ষেই প্রথম টেস্টে জয়লাভ করে বাংলাদেশ যা ছিলো নিউজিল্যান্ডের মাটিতে তাদের বিপক্ষে বাংলাদেশের প্রথম কোনো টেস্ট ম্যাচ জয়।

সকল অভিযোগ কেন ডমিংগোর বিরুদ্ধেই?
নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ঐতিহাসিক টেস্ট জয়ের এক মুহুর্ত

সম্প্রতি, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষেও তাদের মাটিতে প্রথমবারের মতো কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচ জেতে বাংলাদেশ। দিনের পর দিন বাংলাদেশের পেস বোলিং ইউনিটে উন্নতি এবং পাওয়ার হিটিং অ্যাবিলিটির মধ্যেও ব্যাপক উন্নতি চোখে পড়ার মতো। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও ঐতিহাসিক টেস্ট ম্যাচ জয়ে দলের পেয়াসরদের ভূমিকা ছিলো মনে রাখার মতো।

ডমিংগো জাতীয় দলের দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশের এতো অর্জন মোটেও ফেলে দেয়ার মতো নয়। তবুও, দল খারাপ পারফর্ম করলে কেন যেনো কিছু অসাধু মানুষ সব দোষ রাসেল ডমিংগোর উপর চাপিয়ে , ডমিংগোকে ভিলেন বানিয়ে নিজেকে হিরো সাজানোয় ব্যাস্ত।

এই সিরিজ শুরু হওয়ার আগেও, বাংলাদেশ দলের পাওয়ার হিটিং অ্যাবিলিটি বাড়ানোর জন্য অ্যালবি মরকেলকে পাওয়ার হিটিং কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয় বিসিবি এবং মরকেলকে বাংলাদেশ দলের পাওয়ার হিটিং কোচ বানানোর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি অবদান রেখেছেন ডমিংগোই। এ পাওয়ার হিটিং কোচ দলে আশায়, প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ দলের পাওয়ার হিটিংয়ের উন্নতিও ছিলো চোখে পড়ার মতো।

Read more:

নর্থ্যাম্পটনের পুনরাবৃত্তি হ্যামিল্টনে করলো বাংলার বাঘিনীরা

“সকল অভিযোগ কেন ডমিংগোর বিরুদ্ধেই?”-এ 1-টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন