শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামের আদ্যপান্ত

শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়াম, নামটি আমাদের মনে এনে দেয় নস্টালজিয়ার সেই রোমাঞ্চকর অনুভূতি। হ্যা, ৮০-৯০ এর দশকে এই শারজাহ স্টেডিয়ামে ভারত পাকিস্তানের দ্বৈরত এবং শচীন টেনডুলকারের ঐতিহাসিক সব ইনিংস।তাই তো, এ শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামের প্রতি ক্রিকেট প্রেমীদের এক আলাদা আবেগ কাজ করে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অস্ট্রেলিয়ার বাঘাবাঘা বোলার আর স্পিন জাদুকর শেন ওয়ার্নের বিপক্ষে ঝড়ের পর আরেক ঝড় তুলেছিলেন শচীন। ১৯৯৮ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ১৪৩ রান করেছিলেন ১৩১ বলে। গড অব ক্রিকেটের একটি রেকর্ডের সাথে যুক্ত হয়ে গেলো শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়াম।

শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামের আদ্যপান্ত
শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে শচীন

এর আগে অবশ্য আরেক কিংবদন্তি ক্রিকেটার জাভদ মিঁয়াদাদ নিজের এক রেকর্ড গড়া পারফরমেন্সের সঙ্গী করেছিলেন শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামকে। চিরপ্রতিদ্বন্দী ভারতের বিপক্ষে ২৪৬ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ১১৪ বলে ১১৬ রানের এক ইনিংস খেলে জয় ছিনিয়ে আনেন।

[ শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামের আদ্যপান্ত ]

ভারতের ক্রিকেট সমর্থকদের বেদনাতুর এক স্মৃতির সাক্ষী যেমন এই ক্রিকেট স্টেডিয়াম, ঠিক তেমনি গর্বেরও সাক্ষী। তাছাড়া পাকিস্তানের জন্যেও বেশ গর্বের জায়গা শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়াম ক্রিকেট অঙ্গনে পার করে ফেলেছে চার দশক। শাহরাজ ক্রিকেট স্টেডিয়াম প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৮১ সালে। তবে আনুষ্ঠানিক যাত্রাটা শুরু ১৯৮২ সালে

শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামের আদ্যপান্ত
শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ভারত এবং পাকিস্তানের ম্যাচ

সেই সালে অবশ্য প্রতিষ্ঠা হয়েছিলো শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়াম। শারজাহের ধনি ব্যবসায়ী আবদুল রহমান বুখাতির প্রতিষ্ঠা করেন সেই ক্রিকেট স্টেডিয়াম। তবে প্রতিষ্ঠার বছর দুই বাদে ক্রিকেট গড়ায় শারজাহের বাইশ গজে। পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার মধ্যকার এশিয়া কাপের ম্যাচ দিয়ে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয় আধুনিক শারজাহ।

তবে শারজাহ ক্রিকেট কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক মাজহার খান দাবি করেন ১৯৮১ সালে ভারত ও পাকিস্তানের দুই কিংবদন্তি সুনীল গাভাস্কার একাদশ ও জাভেদ মিঁয়াদাদ একাদশের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়াম তাঁর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করে। তবে যে ম্যাচ দিয়েই শুরু হোক না কেন আশি ও নব্বইয়ে দশকে ভারত পাকিস্তানের প্রতিদ্বন্দিতামূলক বেশকিছু ম্যাচ আয়োজন করেছিলো শারজাহ সে নিয়ে তর্কের বিন্দুমাত্র অবকাশ নেই।

শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামের আদ্যপান্ত
শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ইংল্যান্ড দল

সেই থেকে চার চারটি দশক ধরে নানান সব কীর্তির সাক্ষী হয়ে আছে শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়াম। তাছাড়া ক্রিকেট অঙ্গনে নতুন পদাচারণ করা আফগানিস্তানের ঘরের মাঠ হওয়ার সুযোগ হয়েছে এই স্টেডিয়াম। তাছাড়া পাকিস্তানের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নিষিদ্ধ হওয়ার পর পাকিস্তানের বহু ম্যাচ আয়োজনের সুযোগ হয়েছে এই শারজাহ ময়দানে।

এখন অবধি ২৪১টি আন্তর্জাতিক ওয়ানডে ম্যাচ আয়োজন করে ফেলেছে শারজাহ। অথচ ১৯৭৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়া সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ড ১৬১ ম্যাচ আয়োজন করেছে। মাত্র ৫০০০ হাজার দর্শক ধারণক্ষমতার একটি স্টেডিয়ামে এখন প্রায় ১৬ হাজারের মতো দর্শক একসাথে বসে ভদ্রলোকের খেলা ক্রিকেটটা উপভোগ করতে পারে।

তবে এই মাঠও সয়েছে নিষেধাজ্ঞার ধাক্কা। ম্যাচ চলাকালীন ফিক্সিং হয় এমন কারণ দেখিয়ে শারজাহের বিরুদ্বে একজোট হয় বিশ্বের বড় বড় ক্রিকেট খেলুড়ে দেশ। তারপর ক্রিকেট

আয়োজনের নিষেধাজ্ঞা মাথায় নিয়ে একটা লম্বা সময় অপেক্ষা করেছে শারজাহের বাইশ গজ ও সবুজ গালিচা।

২০১০ সালে আফগানিস্তান শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামকে তাঁদের বেসক্যাম্প বানায়। যুদ্ধ বিধস্ত দেশের ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থা তাঁদের সব হোম সিরিজ আয়োজন করতো সেখান। এরপর থেকে ক্রিকেট আবার ফেরে শারজাহে, মরুর বুকে একফোঁটা সবুজের সমারোহ।

এরপর বোর্ড অব কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়া তাঁদের সবচেয়ে জাকজমকপূর্ণ ফ্রাঞ্চাইজি ক্রিকেট লিগ ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগও আয়োজন করে সেই মাঠে, ২০১৪, ২০২০ ও ২০২১ সালে। এর পাশাপাশি ২০২১ সালে টিটোয়েন্টি বিশ্বকাপের বেশ কয়েকটি ম্যাচ আয়োজন করার গৌরব অর্জন করেছে এই মাঠ।

২০১৩ সালে আফগানিস্তানস্কটল্যান্ড ম্যাচ দিয়ে যাত্রা শুরুর পর এই ভেন্যুতে আন্তর্জাতিক টিটোয়েন্টি হয়েছে মোটে ১৪টি। তবে আইপিএলের কল্যাণে এর ২২ গজের চরিত্রটা সবার নখদর্পণে। শারজাহর ২২ গজে রানটা ১৮০ থেকে ২০০র মধ্যেই থাকে। বলাবাহুল্য বাণিজ্যিক দিক বিবেচনায় চারছক্কার ফরম্যাটের জন্য একদম আদর্শ। পিওর ব্যাটিং উইকেট। 


২০১৬ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আফগানিস্তানের ২১৫ রানের ইনিংসটা দখল করে আছে সর্বোচ্চ সংগ্রহের রেকর্ড। অবশ্য ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট আইপিএলে দিল্লি ক্যাপিটালস তুলেছিল ২২৮ রান।
রান বেশি হওয়ার একটা বড় কারণ শারজাহর বাউন্ডারি। মাঠটা বেশ ছোট। লং অনে ৬২, মিড উইকেটে ৬৫ আর স্ট্রেইটে মাত্র ৫৮ মিটার। তাই বোলারদের জন্য চ্যালেঞ্জটা আরও বড়। সম্প্রতি সময়ে এ স্টেডিয়ামে টি টেন ক্রিকেটও আয়োজন করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন:

মন্তব্য করুন