ভারতীয় ক্রিকেটার শামি পাকিস্তানের গুপ্তচর !!!

ভারতীয় ক্রিকেটার শামি পাকিস্তানের গুপ্তচর !!! ভারত-পাকিস্তান । লড়াইটা শুধু মাঠের ক্রিকেটের নয়, লড়াইটা আবেগের , লড়াইটা অস্তিত্বের । কখনো কখনো এই লড়াই দম্ভ-অহমিকার , কখনোবা এই লড়াই জন্ম দেয় নতুন অনেক ইতিহাসের আবার কখনো এই লড়াই ঘটায় ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি ।

ভারতীয় ক্রিকেটার শামি পাকিস্তানের গুপ্তচর !!!
মোঃ শামি, পাকিস্তানি গুপ্তচর ?

সীমিত ওভার কিংবা টি টোয়েন্টি , বিশ্বকাপে ভারত পাকিস্তান  ম্যাচ মানেই যেন পাকিস্তানের হার, ভারতের উৎসব। এই টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগ পর্যন্ত বিশ্বকাপের সব দেখায় হেরেছে পাকিস্তান । এমনকি যেবার তারা বিশ্বকাপ জিতলো (‘৯২) সেবারও নিজেদের লড়াইয়ে মাঠে দাপট ছিল ভারতের ।

৯৬ তে আমির সোহেল- ভেংকাটেশ প্রসাদের সেই কথার লড়াই কিংবা ৯২ তে ইনজামাম কে ছাপিয়ে টেন্ডুলকার; এসব বিষয়  এখনো ক্রিকেট রোমান্টিকদের মনে আলোড়ন সৃষ্টি করে । ২০০৩ এ ওয়াসিম, ওয়াকার, শোয়েবের পাকিস্তানকে একা শাসন করে গেছেন শচীন ।
সময় বদলেছে, বাবর আজমের পাকিস্তান গেয়েছে নতুন দিনের জয়গান । টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভের প্রথম ম্যাচেই ভারতকে হারিয়ে দিয়েছে পাকিস্তান , তাও আবার ১০ উইকেটে । খেলায় হার জিত থাকবেই, তাই বলে ১০ উইকেটে হারবে ভারত?
 একেবারে শুরুতেই জোড়া আঘাত দেন শাহীন আফ্রিদি । পাকিস্তানি এই বাঁহাতি  পেসারের বোলিং তোপে দাঁড়াতেই পারেননি রোহিত, রাহুলরা । একমাত্র প্রতিরোধ গড়েছিলেন অধিনায়ক ভিরাট ।
pak india t20worldcup match ক্রিকেট গুরুকুল, GOLN
পাকিস্তানের শুরুর ধাক্কা সামলেছেন ভিরাট
তবে , অপর প্রান্তে একমাত্র রিশাভ পান্ট ছাড়া কারো সহযোগিতা পাননি , শেষের দিকে হার্দিকের ছোট্ট ক্যামিও বোলারদেরকে ডিফেন্ড করার মত কিছু একটা দিয়েছিল ।  কিন্তু টুইস্ট এর শুরুটা এরপরেই । বাবর- রিজওয়ানের আরো একটি ১৫০+ জুটি , যা এই বছরে তাদের তৃতীয় ১৫০+ জুটি ।
পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানদের কৃতিত্ব যেমন আছে ঠিক তেমনি আছে ভারতীয় বোলারদের ব্যার্থতা । পাওয়ারপ্লেতে ভারতের পেসাররা মাত্র ৩২ শতাংশ বলে ভ্যারিয়েশন দিয়েছেন । সেগুলোকে সমীহ করলেও বাকি ৬৮ শতাংশ বলে বেদম মার মেরেছেন পাকিস্তানি ওপেনাররা ।
অন্যদিকে ভারতের স্পিনাররা ছিলেন আরেক কাঠি সরেস । দুই স্পিনার , বরুন চক্রবর্তী এবং রবীন্দ্র জাদেজা মিলে প্রায় ৫৪ শতাংশ বল করেছেন শর্ট লেন্থে । ৫৪ শতাংশ শর্ট লেন্থে করছেন স্পিনাররা , ভাবা যায় ????
পাকিস্তানের এই জয় মেনে নিতে পারছে না ভারতীয় গনমাধ্যমগুলো। আসলে পাকিস্তানের জয় নয়, ভারতের এই পরাজয় মেনে নিতে পারছেন না তারা ।  সমালোচনা করছে কোহলি-রোহিতদের নিয়ে।
সব থেকে স্পর্শকাতর বিষয়  ম্যাচের পর মোহাম্মদ শামিকে পাকিস্তানি গুপ্তচর বলে আখ্যা দিয়েছেন অনেকে । মোহাম্মদ শামির এই অবস্থায় তার পাশে দাড়িয়েছেন খোদ পাকিস্তানের মোহাম্মদ রিজওয়ান থেকে শুরু করে সাবেক ভারতীয় গ্রেট শচীন টেন্ডুলকার, বীরেন্দ্র শেহবাগ সহ আরো অনেকে। এমনকি তার পাশে দাড়িয়েছেন জাতীয় কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী ও।
রাহুল গান্ধী শামিকে উদ্দেশ্য করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখেছেন “নেটিজেনদের ক্ষমা করে দিন”। মোহাম্মদ রিজওয়ানের মতে হারের জন্য কখনোই একজন ক্রিকেটারকে দায়ী করা উচিত নয়। তিনি বলেছেন, “দেশ ও দেশের মানুষের জন্য প্রচন্ড চাপ, কষ্ট ও ত্যাগ শিকার করতে হয়। শামি বিশ্বের অন্যতম সেরা বোলার ও একজন তারকা। দয়া করে তারকাদের সম্মান দিন।”
এদিকে ভারতীয় গনমাধ্যম গুলো অযথাই রঙ ছড়িয়ে যাচ্ছে এমনটাই মনে করেন পাকিস্তান দলের সাবেক পেসার শোয়েব আখতার। কমেন্টস কার্ডঃ শোয়েব আখতার, সাবেক পেসার, পাকিস্তান। তিনি বলেন, “ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেখে মনে হচ্ছে তাদের দল কখনোই হারতে পারবে না। ভারতকে পাকিস্তান দাপটের সঙ্গেই হারিয়েছে। ঠিক এর উল্টোটাই হতে পারতো। এটা তো ক্রিকেট। আর এটাই ক্রিকেটের সৌন্দর্য।”
এদিকে সংবাদসম্মেলনে পাকিস্তানের বিপক্ষে এই হারে পাকিস্তানকেই ক্রেডিট দিচ্ছেন ভারতীয় অধিনায়ক ভিরাট কোহলি । তার মতে , এই ম্যাচে পাকিস্তান ভারতের চাইতে অনেক বেশী এগিয়ে ছিল, যোগ্য দল হিসেবেই তারা জিতেছে । অন্যদিকে রোহিত শর্মা প্রসঙ্গে ভিরাট বলেন, তিনি এখনো ভারতের সেরা খেলোয়াড়দের একজন ।

sasafjas 1635097288979 1635097294450 ক্রিকেট গুরুকুল, GOLN
এমন সম্পর্কই তো দেখতে চায় ক্রিকেট বিশ্ব
                                                                                                                                    অবশ্য ভারতের বিপক্ষে এই জয়ে খুব বেশী আত্মহারা হতে রাজী নন পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজম । তার মতে, এই সময়টা আত্মহারা হওয়ার নয় , সামনে এগিয়ে যাওয়ার । তিনি বিশ্বকাপ জিততে চান এবং প্রতিটি ম্যাচ ধরে এগুতে চান; ড্রেসিংরুমে সতীর্থদের এমনটাই জানিয়েছেন বাবর ।
ভারত-পাকিস্তানের লড়াই মাঠের বাইরে যতটা উত্তাপ ছড়িয়েছে মাঠের ভেতর দেখা যায় নি তার ছিঁটেফোটাও। একেকটা বলের পর আগের সেই আগ্রাসন নেই, উল্টো আছে ম্যাচ শেষে একে অপরের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক । ম্যাচ শেষে মোহাম্মদ রিজওয়ান আর ভিরাট কোহলির উষ্ণ আলিংগন মন কেড়েছে সবার ।
এছাড়াও মহেন্দ্র সিং ধোনিকে নিয়ে এক বড় ধরনের জটলা দেখা গেছে পাকিস্তানি তরুণ ক্রিকেটারদের । সেখানে পাওয়া গেছে শোয়েব মালিকের উপস্থিতিও । সব কিছু মিলিয়ে বোঝা যাচ্ছে , দুই দেশের ভাষা- সংস্কৃতির সাদৃশ্যের পাশাপাশি ক্রিকেট মাঠেও এক ধরনের বন্ধুত্ব তৈরী হয়েছে ।
এরই মধ্যে আরেকটি গুঞ্জন ডাল-পালা মেলেছে । আইপিএলে দেখা যাবে নাকি পাকিস্তানি খেলোয়াড়দের ?

ভারতীয় ক্রিকেটার শামি পাকিস্তানের গুপ্তচর !!!

আরও পড়ুন:

মন্তব্য করুন