বেন স্টোকস : জিরো থেকে হিরো

বেন স্টোকস, বর্তমান বিশ্বের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার। যেকোনো পরিস্থিতেই বেন স্টোকসের আক্রমণাত্মক ক্রিকেট যেনো ক্রিকেট বিশ্বে তাকে এক অনন্য তাঁরা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছে।বেন স্টোকসের জন্ম  নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে ১৯৯১ সালের ৪ জুন।

স্টোকসের বাবা জেরার্ড স্টোকস ছিলেন একজন রাগবি খেলোয়াড় এবং কোচ।   স্টোকসের বয়স যখন ১২ বছর বয়স, তখন তার পরিবার পাড়ি জমায়  ইংল্যান্ডে।তার পিতা ওয়ার্কিংটন শহরের রাগবি লিগ ক্লাবের প্রধান কোচ নিযুক্ত হন। সেখানেই ছেলেবেলা ক্রিকেটের দীক্ষা নিতে থাকেন স্টোকস ও স্থানীয় পর্যায়ে  বিভিন্ন ক্লাবের হয়ে খেলতে থাকেন তিনি।

  ককেরমাউথ ক্রিকেট ক্লাব মাঠেই বেন স্টোকস জুনিয়র লেভেলে ক্রিকেট খেলা শুরু করেন। ২০০৯ সালে, ওভালে দা ডারহামের হয়ে ওয়ানডে ক্রিকেটে অভিষেক হয় বেন স্টোকসের। সে ম্যাচ নিজের বোলিং স্পেলের তৃতীয় বলেই অভিজ্ঞ ব্যাটার মার্ক রামপ্রকাশ এর উইকেট লাভ করেন স্টোকস।

স্টোকস, ২০০৯ সালে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের বিরুদ্ধে দুটি যুব টেস্ট ম্যাচ খেলেন এবং সে সিরিজে তিনি একটি অর্ধ শতকের পাশাপাশি বেশ কয়েকটি উইকেটও লাভ করেন। ২০১০ সালে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেন স্টোকস। সে টুর্নামেন্টে তিনি ভারতের অনূর্ধ্ব-১৯ দলের বিরুদ্ধে একটি অনবদ্য শতক হাকান স্টোকস।

 আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ২০১১ সালের আগস্টে আন্তর্জাতিক ওয়ানডে-ক্রিকেটে ইংল্যান্ড জাতীয় দলের হয়ে  অভিষেক ঘটে স্টকসের। তবে, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকটা মোটেও সুখকর হয়নি স্টোকসের। সে ম্যাচে মাত্র তিন রান করে পল স্টার্লিঙের বলে কট এন্ড বোল্ড হয়ে আউট হন স্টোকস।

সে ম্যাচে বোলিং করার সুযোগ না পেলেও ফিল্ডিংয়ের তবে একটি ক্যাচ লুফে নেন তিনি। এরপর থেকেই অল্প অল্প করে নিজের ব্যাটিং ক্যাপাবিলিটি এবং বোলিং ক্যাপাবিলিটি উভয়েই উন্নতি সাধন করে নিজেকে বিশ্বের-অন্যতম সেরা অলরাউন্ডারে পরিণত করে গেছেন বেন স্টোকস। মূলত, কঠোর পরিশ্রমের কারণেই স্টোকস ধারাবাহিকভাবেই বেয়ে উঠছিলেন সফলতার সিঁড়ি।

 

বেন স্টোকসঃ জিরো থেকে হিরো
ট্রেনিং করছেন স্টোকস

 

বেন স্টোকসঃ জিরো-থেকে হিরো

২০১৬ টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বেন স্টোকসের ক্রিকেটীয় ক্যারিয়ারে উন্নতির এক সিড়ি রূপে সাব্যস্ত হয়। কারণ, সে বিশ্বকাপের ফাইনালে তার বাজে বোলিংয়েই ইংল্যান্ডের কাছ থেকে বিশ্বকাপ ট্রফি ছিনিয়ে নেয় উইন্ডিজ।

বেন স্টোকসঃ জিরো থেকে হিরো
২০১৬ টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ফাইনালে স্টোকস

 

সেই  টি২০ বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিনি খরুচে বোলিং করেন এবং সে ম্যাচে চার ওভার বোলিং করে কোনো উইকেট না নিয়ে ৪২ রান দেয় স্টোকস। তবে, সে বিশ্বকাপের সেমি-ফাইনালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিনি তার আসরের সেরা বোলিং করেন এবং ২৬ রান দিয়ে ৩ উইকেট তুলে নেন।

তবে, সে বিশ্বকাপের ফাইনালে কেদেছিলেন স্টোকস। কারণ, ফাইনালে স্টোকস ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে শেষ ওভারে বোলিং করেন এবং  ওয়েস্ট ইন্ডিজের লোয়ার-অর্ডার অল-রাউন্ডার কার্লোস ব্র্যাথওয়েট  পরপর চার বলে চারটি ছক্কা হাকিয়ে ইংল্যান্ডের কাছ থেকে টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ট্রফি ছিনিয়ে নেয়।

সে বিশ্বকাপের ফাইনালের শোক যেনো স্টোকসকে পরবর্তী দিনগুলোতে করেছে আরো পরিণত। যার, ফলশ্রুতিতে পরবর্তীতে দেখা যায়, ২০১৯ বিশ্বকাপে যেখানে নিজের অলরাউন্ড নৈপুণ্যে ইংল্যান্ডের মাটিতেই তাদের দর্শকের সামনে নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ওয়ানডে বিশ্বকাপ জয়ের স্বাদ পায় ইংল্যান্ড।

বেন স্টোকসঃ জিরো থেকে হিরো
২০১৯ বিশ্বকাপ ফাইনালে স্টোকস

 

 ২০১৯ বিশ্বকাপ আসরের প্রথম ম্যাচে তিনি দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ব্যাট হাতে ৭৯ বলে ৮৯ রানের পাশাপাশি বল হাতে দুটি উইকেট তুলে নেন স্টোকস। সে ম্যাচে ফিল্ডিংয়েও চমক দেখান স্টোকস। প্রিটোরিয়াসকে রান আউট করেন এবং দুটি ক্যাচ নিয়ে ম্যাচ সেরা ঘোষিত হন। অ্যান্ডিল ফেহলাকওয়াইওকে আউট করা ক্যাচটি ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম  সেরা ক্যাচ হিসেবে বিবেচিত হয়।

১৪ জুলাই, ২০১৯ বিশ্বকাপ ফাইনাল ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিনি ৯৮ বলে ৮৪ রান করে ম্যাচটি টাই করতে অবদান রাখেন এবং এরপরে সুপার ওভারে ৩ বলে আট রান করে ইংল্যান্ডকে বিশ্বকাপ ট্রফি জিততে সবচেয়ে মুখ্য ভূমিকা পালন করেন। যে স্টোকসের কারণে, ২০১৬ টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ট্রফি জয় অধরা থেকে যায়, সে স্টোকসের হাতেই প্রথমবারের মতো ওয়ানডে বিশ্বকাপের শিরোপা জেতে ইংল্যান্ড। এ যেনো জিরো থেকে হিরো হয়ে ওঠার এক অনন্য উদাহরণ।

বর্তমানে, ইংল্যান্ড টেস্ট দলের অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন স্টোকস। সম্প্রতি সময়ে টেস্ট ক্রিকেটে নিজের অধিনায়কত্বের অভিষেক সিরিজেই নিউজিল্যান্ডকে ৩-০ তে হোয়াইটওয়াশ করে ইংল্যান্ড। এছাড়া, গত বছর ভারতের বিপক্ষে স্থগিত হওয়া টেস্ট সিরিজের পঞ্চম ম্যাচে তার আক্রমণাত্মক অধিনায়কত্বেই ম্যাচ জিতে সিরিজ ড্র করতে সমর্থ হয় ইংল্যান্ড।

বেন স্টোকসঃ জিরো থেকে হিরো
নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ জয়ের পর ট্রফি হাতে স্টোকস

 

তব, মঙ্গলবার হঠাৎই, এক আকস্মিক ঘোষণা দিয়ে সবাইকে চমকে দিয়েছেন বেন স্টোকস। আজ, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজের প্রথম ওয়ানডে ম্যাচ খেলেই আন্তর্জাতিক-ওয়ানডে ক্রিকেটকে বিদায় জানাবেন বেন স্টোকস। বেন স্টোকসের এ ঘোষণায়, যেন হঠাৎ করে এক প্রকার ঝাটকাই পেয়ে গেছে পুরো ক্রিকেট বিশ্ব।

আন্তর্জাতিক ওয়ানডে-ক্রিকেটে বেন স্টোকসের রেকর্ড বেশ ঈর্ষণীয়। তিনি ১০৪ টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলে ৩৯.৪৪ গড়ে ২৯১৯ রান করেন যেখানে রয়েছে ৩টি শতক এবং ২১টি অর্ধশতক।

“বেন স্টোকস : জিরো থেকে হিরো”-এ 1-টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন